logo

নভেরা আহমেদের ভাস্কর্যচর্চার স্বল্পালোচিত অধ্যায় : ১৯৬০-৭০

রে জা উ ল ক রি ম সু ম ন

১৯৬০ সালে ঢাকায় নভেরা আহমেদের প্রথম একক ভাস্কর্য প্রদর্শনীর দীর্ঘ প্রায় তিন যুগ পরে বাংলাদেশ জাতীয় জাদুঘরের উদ্যোগে সে-প্রদর্শনীর তিরিশটির বেশি ভাস্কর্য সংগৃহীত হয় এবং ১৯৯৮ সালে একত্রে মাসাধিককালব্যাপী প্রদর্শিত হয়। পরে শিল্পপতি এম আর খানের বাড়ির উদ্যানে নির্মিত মুক্তাঙ্গন ভাস্কর্য ‘পরিবার’ও (১৯৫৮) ফোয়ারাসহ জাতীয় জাদুঘরের সামনে পুনঃস্থাপিত হয়। বাংলাদেশে ভাস্কর হিসেবে নভেরার মূল্যায়ন মূলত তাঁর ১৯৫৭-৬০ কালপর্বের শিল্পকর্মগুলির আলোচনার মধ্যে সীমাবদ্ধ।
পরবর্তীকালে যথাক্রমে ব্যাংককে ও প্যারিসে আয়োজিত শিল্পীর দ্বিতীয় ও তৃতীয় একক প্রদর্শনী সম্পর্কে তথ্যের অপ্রতুলতার কারণে তাঁর পরিণত পর্যায়ের শিল্পকৃতি নিয়ে তেমন একটা আলোচনা হয়নি।
বিগত প্রায় পাঁচ দশক তাঁর নিভৃত প্রবাস-যাপনের ফলে এই দীর্ঘ সময়জুড়ে বাংলাদেশের শিল্পাঙ্গনে তাঁর সক্রিয় অংশগ্রহণ নেই, তাঁর শিল্পচর্চার ধারাবাহিকতা সম্পর্কেও আমরা অনবহিত। শিল্পীজীবনের উন্মেষপর্বে, ১৯৬১ সালে, ভাস্কর হিসেবে জাতীয় পর্যায়ে স্বীকৃতি পেয়েছিলেন তিনি; পরে ১৯৯৭ সালে বাংলাদেশ সরকার প্রদত্ত সর্বোচ্চ জাতীয় সম্মাননা একুশে পদকে ভূষিত হয়েছেন। তাঁকে নিয়ে জীবনী উপন্যাস রচিত হয়েছে (নভেরা, হাসনাত আবদুল হাই, ১৯৯৪, গ্রন্থাকারে প্রকাশ ১৯৯৫), নির্মিত হয়েছে প্রামাণ্যচিত্র (নহন্যতে, এন রাশেদ চৌধুরী, ১৯৯৯)। বাংলাদেশের শিল্পকলার ইতিহাসে ভাস্কর ও নারীশিল্পীদের পথিকৃৎ হিসেবে স্বীকৃতি পেয়েছেন তিনি, কিন্তু তা সত্ত্বেও নভেরা আহমেদের যথাযথ ও পূর্ণাঙ্গ মূল্যায়ন এখনো পর্যন্ত হয়নি।

১৯৫০ দশকের প্রথমার্ধে লন্ডনের ক্যাম্বারওয়েল স্কুল অব আর্টস অ্যান্ড ক্র্যাফটসে চেক ভাস্কর কারেল ফোগেলের (১৮৯৭-১৯৬১) তত্ত্বাবধানে নভেরার শিল্পশিক্ষা-পর্ব মেহবুব আহমেদের একাধিক প্রবন্ধে আলোচিত হয়েছে। আমিনুল ইসলামের স্মৃতিকথার (বাংলাদেশের শিল্প আন্দোলনের পঞ্চাশ বছর : প্রথম পর্ব ১৯৪৭-১৯৫৬, ২০০৩) কল্যাণে বিখ্যাত ইতালীয় ভাস্কর ভেন্তুরিনো ভেন্তুরির (১৯১৮-২০০২) ফ্লোরেন্সের স্টুডিওতে নভেরার প্রশিক্ষণ গ্রহণের কথাও আমাদের অবিদিত নয়। তাঁর ১৯৫৭ থেকে ১৯৬০ সালের মধ্যে নির্মিত ভাস্কর্যের আঙ্গিক, করণকৌশল ইত্যাদি নিয়ে বিশদ আলোচনা করেছেন লালা রুখ সেলিম। বর্তমান নিবন্ধের স্বল্প পরিসরে কিছু সম্পূরক তথ্য সংযোজনের পাশাপাশি শিল্পীর ১৯৬০-৭০ কালপর্বে নির্মিত ভাস্কর্যের স্বল্পালোচিত প্রসঙ্গ উত্থাপিত হয়েছে।

নভেরার প্রথম একক ভাস্কর্য প্রদর্শনী আয়োজিত হয়েছিল কেন্দ্রীয় গণগ্রন্থাগারে (বর্তমানে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় গ্রন্থাগার) পাকিস্তান জাতিসংঘ সমিতির উদ্যোগে এবং এশিয়া ফাউন্ডেশনের সহযোগিতায়। ১৯৬০ সালের ৭ আগস্ট রবিবার বিকেলে অন্তর্দৃষ্টি বা Inner Gaze শীর্ষক এই প্রদর্শনী উদ্বোধন করেন পূর্ব পাকিস্তানের গভর্নর লেফটেন্যান্ট জেনারেল মোহাম্মদ আজম খান। দৈনিক আজাদের প্রতিবেদন অনুযায়ী, উদ্বোধন অনুষ্ঠানে ‘গবর্ণর পাকিস্তানে ভাস্কর্য্য শিল্পের আলোকবর্ত্তিকা বহনকারিনী নভেরার উজ্জ্বল ভবিষ্যৎ কামনা করেন এবং তাহার শিল্প সৃষ্টির সহায়তাকল্পে দশ হাজার টাকা সাহায্য ঘোষণা করেন।’ পরের দিন সোমবার থেকে পরবর্তী দশদিন এই প্রদর্শনী সর্বসাধারণের জন্য উন্মুক্ত ছিল। কেবলমাত্র ঘরের মধ্যে সীমাবদ্ধ না রেখে কিছু ভাস্কর্য গ্রন্থাগার প্রাঙ্গণেও প্রদর্শিত হয়েছিল। প্রদর্শনীতে ভাস্কর্য ছিল সর্বসাকল্যে প্রায় পঁচাত্তরটি।
‘অন্তর্দৃষ্টি’ কেবল নভেরা আহমেদেরই নয়, সমগ্র পাকিস্তানের ক্ষেত্রেই সেটা ছিল নারী-পুরুষ নির্বিশেষে কোনো ভাস্করের প্রথম একক ভাস্কর্য প্রদর্শনী। প্রদর্শনীটি পাকিস্তানের দুই অংশের শিল্পরসিকদেরই দৃষ্টি আকর্ষণ করেছিল। তৎকালীন পত্রিকার সাক্ষ্যে জানা যাচ্ছে, উদ্বোধনের তিনদিন পর ১০ আগস্ট বুধবার গভর্নর-পত্নী মিসেস আজম খান নভেরার ভাস্কর্য প্রদর্শনী পরিদর্শন করেন। তাঁকে অভ্যর্থনা জানান প্রদর্শনীর উদ্যোক্তা পাকিস্তান জাতিসংঘ সমিতির পূর্বাঞ্চল শাখার সদস্যা ডা. ফাতিমা সাদেক, বেগম শামসুন্নাহার মাহমুদ এবং শিল্পী স্বয়ং। সেদিনের অন্যান্য দর্শনার্থীর মধ্যে ছিলেন লাহোরের পাকিস্তান আর্টস কাউন্সিলের সেক্রেটারি কবি ফয়েজ আহমেদ ফয়েজ, লাহোর আর্ট কলেজের ভাইস প্রিন্সিপাল শিল্পী শাকির আলী, শিল্পী জয়নুল আবেদিনসহ বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গ।
�- ‘Child Philosopher’। মুদ্রিত প্রতিরূপের কল্যাণে এই ভাস্কর্যটি আমাদের পরিচিত। Contemporary Arts in Pakistan পত্রিকায় প্রকাশিত ডি এস ওয়াটসনের পর্যালোচনা থেকে জানা যায়, তাঁর অন্য যে-দুটি কাজ প্রদর্শনীতে ছিল সেগুলির একটি ‘কোয়ার্টার রিলিফে অ্যাবস্ট্রাক্ট প্যানেল’, অন্যটি অবয়বধর্মী ভাস্কর্য ‘Exterminating Angel’। ছয় ফুটের অধিক উচ্চতাবিশিষ্ট শেষোক্ত স্টাইলাইজ্ড্ ভাস্কর্যটিতে বিধৃত হয়েছে শকুনের শ্বাসরোধকারী একজন নারীর অবয়ব – নারীর হাতে অশুভ শক্তি ও মৃত্যুর পরাভবের প্রতীক।
পাকিস্তানের অগ্রগণ্য শিল্প-ইতিহাসবেত্তা সালিমা হাশমি তাঁর Unveiling the Visible : Lives and Works of Women Artists in Pakistan (2002) বইয়ের ‘নভেরা আহমেদ’ শীর্ষক ভুক্তি-নিবন্ধে ‘Child Philosopher’-‘Exterminating Angel’ শীর্ষক ভাস্কর্যটির নির্মাণকাল ১৯৬০।-অদেখা আরো একটি ভাস্কর্যের ছবিও সালিমার লেখায় সন্নিবেশিত হয়েছে – ‘Female Form’ (ছবির ক্যাপশনে অবশ্য আছে ‘Standing Figure’); ছয় ফুটের অধিক উচ্চতাবিশিষ্ট এ ভাস্কর্যও ১৯৬০ সালে নির্মিত। ঢাকায় ১৯৬০ সালের আগস্ট মাসে আয়োজিত শিল্পীর প্রথম একক প্রদর্শনীর যেসব ভাস্কর্য আমরা ক্যাটালগে বা বর্তমানে বাংলাদেশ জাতীয় জাদুঘরে দেখি, সেগুলির সঙ্গে লাহোর-পর্বের ভাস্কর্যের কোনো শৈলীগত সামীপ্য নেই।
কালি ও কলমের দ্বিতীয় বর্ষ তৃতীয় সংখ্যায় (এপ্রিল ২০০৫) প্রকাশিত মেহবুব আহমেদের লেখা ‘ভাস্কর নভেরা আহমেদ’ থেকে আমরা জেনেছি (তিনি জেনেছেন সম্ভবত শিল্পীর ঘনিষ্ঠ সুহৃদ সাংবাদিক এস এম আলীর কাছ থেকে) – প্রথম প্রদর্শনীর ‘কিছুদিন পর লাহোর আর্টস কাউন্সিলের সেক্রেটারি ফয়েজ আহমেদ ফয়েজের আমন্ত্রণে নভেরা লাহোরে চলে গেলেন, ঢাকার চেয়ে সেখানে কমিশন পাওয়ার সুযোগ বেশি হবে – এরকম একটা ধারণা তিনি পেয়েছিলেন।’ অনুমান করা যেতে পারে, ১৯৬০ সালের শেষদিকে কোনো একসময়ে নভেরা লাহোরে গিয়েছিলেন এবং বছরখানেক সেখানে অবস্থান করেছিলেন। ১৯৬১ সালের শেষদিকে নৃত্যে প্রশিক্ষণ গ্রহণের জন্য তাঁর ভারতে অবস্থান এবং ১৯৬২ সালের শেষদিকে দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়া ভ্রমণ বাদ দিলে ১৯৬৩-র প্রায় শেষ পর্যন্ত মূলত লাহোরেই থেকেছেন তিনি। এস এম আলী সে-সময়ে প্রায় দুই বছর সেখানকার The Pakistan Times পত্রিকায় সহকারী সম্পাদক হিসেবে কর্মরত ছিলেন।
বস্ত্ততপক্ষে ঢাকায় প্রথম প্রদর্শনীর পর নভেরা আহমেদের ভাস্কযচর্চার প্রধান কেন্দ্র ছিল লাহোর। তাঁর লাহোর-পর্বের ভাস্কর্য নিয়ে সংক্ষিপ্ত কিন্তু গুরুত্বপূর্ণ তথ্য রয়েছে কবি ফয়েজ আহমেদ ফয়েজের কন্যা সালিমা হাশমির পূর্বোক্ত নিবন্ধে :
Novera came to Lahore for the National Exhibition in 1961, and stayed for almost a year. Her works were exhibitied at the Alhamra Art Centre — then known as the Pakistan Arts Council — and bought by important private collectors. The ‘Child Philosopher’ was in the private collection of Mian Mumtaz Daultana; the ‘Exterminating Angel’ in the collection of the late Dr. Riaz Ali Shah; the ‘Female Form’ in that of Alys Faiz. Two works were gifted to Faiz Ahmed Faiz, to be placed at the Arts Council where they still remain.
বর্তমানে আল হামরা আর্টস কাউন্সিলের গ্যালারিতে সংরক্ষিত শেষোক্ত অবয়বধর্মী ভাস্কর্য দুটির বিষয়বস্ত্ত মা ও শিশু এবং নারী। ওপরের উদ্ধৃতি থেকে জানা যাচ্ছে, লাহোরের জাতীয় প্রদর্শনীর তিনটি ভাস্কর্যের মধ্যে ‘Child Philosopher’ ও ‘Exterminating Angel’
The medium used in all three of her exhibits is concrete, which suits the panel perfectly, but imparts a deadness to the other two, which one wished had been done in either stone or bronze. She herself undoubtedly wishes the same, but the problems of casting large metal figures must be almost insuperable in Lahore, and the cost of marble puts it out of the range of an artist who is not working on an advance from a patron. Sculpture has always had to be commissioned; the artist working independently has never been able to cope with the expense of it unaided. Miss Novera has now one commission that I know of; let us hope that the patron will finance marble. The value of the finished work will be infinitely higher.
সেই কমিশনের কাজটি শিল্প-সমালোচকের প্রত্যাশা অনুযায়ী শিল্পী মার্বেলে বা ব্রোঞ্জে করতে পেরেছিলেন কি না, আদৌ সেটি কোথায় সংরক্ষিত আছে – সে-বিষয়ে অন্য কোনো সূত্র থেকেও কিছু জানা যায়নি।
একথা প্রায় নিশ্চিতভাবেই বলা যায়, তৎকালীন পশ্চিম পাকিস্তানে ভাস্কর হিসেবে নিজের একটা দৃঢ় অবস্থান তৈরি করতে সমর্থ হয়েছিলেন নভেরা। Pakistan Quarterly পত্রিকার সম্পাদক জালালউদ্দিন আহমেদের Art in Pakistan (করাচি, ১৯৫৪) গ্রন্থের পরিমার্জিত ও পরিবর্ধিত দ্বিতীয় সংস্করণে (১৯৬২) তাঁর ওপর একটি স্বতন্ত্র ভুক্তি অন্তর্ভুক্ত হয়েছিল। Contemporary Arts in Pakistan[…] no discussion of Pakistani art would be complete without reference to her [Novera Ahmed].’
এদিকে এর দীর্ঘ চার দশক পর সালিমা হাশমি নভেরা আহমেদের মূল্যায়ন প্রসঙ্গে লিখেছেন, ‘Perhaps the first sculptor in Pakistan to adopt a thoroughly contemporary idiom’। তাঁর এই মন্তব্যের যাথার্থ্য অনুধাবনের জন্য নভেরার সমসাময়িক পশ্চিম পাকিস্তানি ভাস্করদের প্রসঙ্গ উত্থাপন জরুরি।
ঢাকায় ১৯৬০ সালে নভেরার একক প্রদর্শনীর প্রায় বছর তিনেক পরে, ১৯৬৩ সালে, করাচির পাকিস্তান আর্টস কাউন্সিলের উদ্যোগে আয়োজিত হয়েছিল সৈয়দ আফসার মাদাদ নাকভির প্রথম একক ভাস্কর্য প্রদর্শনী। সেটি ছিল পশ্চিম পাকিস্তানের প্রথম ও সমগ্র পাকিস্তানের দ্বিতীয় একক ভাস্কর্য প্রদর্শনী।

১৯৪৯ সালে নাসির শামসির প্রথম একক প্রদর্শনী আয়োজিত হয়েছিল করাচির ফাইন আর্টস সোসাইটির উদ্যোগে। অবশ্য তখনো পর্যন্ত তাঁর আগ্রহ সীমাবদ্ধ ছিল চিত্রকলায়। সে-বছরের মে মাসে তিনি ভর্তি হন লন্ডনের সেন্ট্রাল স্কুল অব আর্টের তিন বছর মেয়াদি ডিজাইন কোর্সে। উচ্চশিক্ষা নিয়ে দেশে ফিরে তিনি কমার্শিয়াল আর্টিস্ট হিসেবে কর্মজীবন শুরু করেন। নাসির শামসি ভাস্কর্য নির্মাণে মনোযোগী হন আরো পরে – ১৯৬০-এর দশকের গোড়ার দিকে। নগ্ন অবয়ব বিষয়ে সামাজিক স্বীকৃতির অভাব ও নিজের নানামুখী পেশাগত ব্যস্ততার কারণে তাঁর ভাস্কর্যচর্চা দীর্ঘস্থায়ী হয়নি।
১৯৬০ সালে করাচিতে অনুষ্ঠিত তৃতীয় জাতীয় চিত্রকলা ও ভাস্কর্য প্রদর্শনীর পর্যালোচনা করতে গিয়ে সে-সময়ে পাকিস্তানে অবস্থানকারী মার্কিন শিল্পী এলেইন হ্যামিলটন নাসির শামসির ভাস্কর্য সম্পর্কে মন্তব্য করেছিলেন :
Shamsie’s ‘Standing Figure’ most definitely stands out, though the obvious echos of Henry Moore resounds and makes this, as two other pieces by him, more a matter of exercise than a genuine creative effort.
নভেরার সমসাময়িক পাকিস্তানি ভাস্করদের মধ্যে দুজন দীর্ঘদিন ভাস্কর্যচর্চায় স্থিত থেকেছেন – ওজির জুবি ও আফসার মাদাদ নাকভি। নাকভি ছিলেন ঘোষিতভাবেই ‘ঐতিহ্যপন্থী’ – তিনি প্রাচীন ভারতীয় ভাস্কর্যের অনুপ্রেরণায় প্রাচ্যরীতির অবয়বধর্মী ভাস্কর্য নির্মাণ করেছেন। দুজনেরই কমিশনের ভিত্তিতে করা কাজের বড় অংশ ছিল প্রতিকৃতি ভাস্কর্য। তাঁদের সম্পর্কে পাকিস্তানের শিল্প-বিষয়ক সাময়িকপত্র Nukta-য় প্রকাশিত ‘The Dissident Dialogue’ শীর্ষক এক লেখায় মন্তব্য করা হয়েছে :
Both these artists, for different reasons, leave behind no articulation of a personal grammar, and stayed well within the established framework. For Zuby, sculpture took a backseat as he established and ran the School of Decor in Karachi. Naqvi, with his full time responsibility as the head of the modest Sculpture Department of the Central Institute of Arts and Crafts (CIAC), and later as head of the school, had few opportunities to exhibit his work and was happy to hone his skills on private commissions.
এই দুজন শিল্পীর সঙ্গে নভেরার বড় পার্থক্য তাঁর ভাস্কর্যচর্চার ধারাবাহিকতায় এবং স্বাতন্ত্র্যের অন্বেষণে।
নভেরা আহমেদের দ্বিতীয় একক প্রদর্শনীর সময়কাল নিয়ে ভিন্ন ভিন্ন তথ্য প্রচলিত আছে। মেহবুব আহমেদের মতে, ‘১৯৬৮ সালের শেষদিকে ব্যাংককে নভেরা আহমেদের একক প্রদর্শনী হয়।’ শিল্প ও শিল্পীর দ্বিতীয় বর্ষ প্রথম সংখ্যায় (সেপ্টেম্বর ২০১২) প্রকাশিত ‘নভেরা – নতুন পথের দিশারী’ শীর্ষক প্রবন্ধে তিনি আক্ষেপ করেছেন, ‘অত্যন্ত পরিতাপের বিষয় যে, নভেরার প্যারিসে করা যে-কাজগুলো ব্যাংককে প্রদর্শিত হয়েছিল তার কোনো নিদর্শন পাইনি, এমনকি ব্রোশারও নয়।’
অন্যদিকে সেলিনা হোসেন জেন্ডার বিশ্বকোষের (২০০৬) প্রথম খন্ডের ‘নভেরা আহমেদ’ শীর্ষক ভুক্তিতে লিখেছেন, ‘১৯৮৮ সালে প্যারিসে অবস্থানকালে ব্যাংককের আলিয়ঁস ও পাকিস্তান ইন্টারন্যাশনাল এয়ারলাইনস যৌথভাবে তাঁর একক প্রদর্শনীর আয়োজন করে।’
বাংলাদেশের নারী চরিতাভিধানে ব্যাংককের প্রদর্শনী সম্পর্কে সঠিক তথ্য রয়েছে বাংলাদেশ এশিয়াটিক সোসাইটি প্রকাশিত বাংলাদেশ সাংস্কৃতিক সমীক্ষা গ্রন্থমালার চারু ও কারুকলা (২০০৭) সংকলনভুক্ত লালা রুখ সেলিমের লেখায় : ‘১৯৭০ সালে তিনি [নভেরা আহমেদ] ব্যাংককে যান এবং প্রাঙ্গণ ভাস্কর্যের প্রদর্শনী করেন।’
ব্যাংকক পোস্ট পত্রিকার তৎকালীন ব্যবস্থাপনা পরিচালক এস এম আলীই যে এই প্রদর্শনীর মূল উদ্যোক্তা ছিলেন সে-বিষয়ে সন্দেহ নেই। আর সম্প্রতি-প্রাপ্ত ‘ব্রোশার’ বা ক্যাটালগের সাক্ষ্য নিয়ে এখন নিশ্চিত করেই বলা সম্ভব, ব্যাংকক আলিয়ঁস ফ্রঁসেজের আয়োজনে নভেরার প্রদর্শনী চলেছিল ১৯৭০ সালের ১৪ থেকে ২৪ অক্টোবর পর্যন্ত, আয়োজক প্রতিষ্ঠানের নিজস্ব ভবনে (২৯ থানন সাথর্ন তাই)। প্রদর্শনী আয়োজনে পৃষ্ঠপোষকতা করেছিলেন থাইল্যান্ডে পাকিস্তানের রাষ্ট্রদূত মি. রব, শিল্পাকর্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের আলংকারিক শিল্পকলা অনুষদের ডিন প্রিন্স ইয়াৎচাই চিত্রাবংস, পাকিস্তান ইন্টারন্যাশনাল এয়ারলাইনসের ডিরেক্টর মাহমুদ-আল-হক। এবং এর উদ্বোধন করেছিলেন প্রিন্স কারাবিক চক্রবন্ধু, যিনি নিজেও ছিলেন শৌখিন চিত্রকর ও ভাস্কর।
ক্যাটালগে মুদ্রিত ভাষ্য অনুযায়ী :
This is a unique kind of art exhibition. Novera Ahmed, the most famous sculptress of Pakistan and well known among art circles in London and Paris, presents her recent works in an exposition that provides a welcome break to her self-imposed detachment from public attention. What makes this exhibition all the more unique is that it is also Bangkok’s first open air show of sculptures in direct metal, a medium that poses almost formidable challenges to contemporary artists. In more ways than one, this exhibition should make a vital contribution to the modern art movement in Asia.

আর এ সময়েই, ১৯৭০ সালের অক্টোবরে, নভেরা আহমেদের ধাতব মাধ্যমে তৈরি ভাস্কর্যের প্রদর্শনীটি ছিল ব্যাংককে ধাতব ভাস্কর্যের প্রথম মুক্তাঙ্গন প্রদর্শনী। ব্রোঞ্জ ছাড়াও এ-পর্বে নভেরা তাঁর ভাস্কর্যের উপকরণ হিসেবে ব্যবহার করেছেন শিট মেটাল এবং ঝালাইকৃত বা ওয়েলডেড ও স্টেইনলেস স্টিল।
১৯৬৮ থেকে ১৯৭০ সালের মধ্যে নির্মিত ভাস্কর্যগুলোর মধ্যে অধিকাংশই বেশ বড় আকারের – ৫ ফুট থেকে শুরু করে এমনকি ৭ ফুট ১১ ইঞ্চি পর্যন্ত উচ্চতাবিশিষ্ট। একই বিষয়বস্ত্ত নিয়ে নির্মিত একাধিক ভাস্কর্যের মধ্যে ‘পরিবার’ (১৯৬৯), ‘যুগল’ (১৯৬৯), ‘ইকারুস’ (১৯৬৯) ইত্যাদি কাজে মাধ্যমগত চাহিদার কারণেই অবয়বগুলি সরলীকৃত। ওয়েলডেড স্টিলের ‘জেব্রা ক্রসিং’ (১৯৬৮), দুটি ‘লুনাটিক টোটেম’ ইত্যাদির পাশাপাশি রয়েছে ব্রোঞ্জে তৈরি দন্ডায়মান অবয়ব। এছাড়া কয়েকটি রিলিফ ভাস্কর্য ও স্ক্রল।
‘লুনাটিক টোটেম’ বা ‘মেডিটেশনে’র (১৯৬৮) মতো ভাস্কর্যে শিল্পীর মরমি অনুভবের বহিঃপ্রকাশ ঘটেছে। কোথাও-বা রয়েছে আদিম ভাস্কর্যরীতি থেকে পরিগ্রহণ। তবে একেবারে ভিন্ন রীতির কাজও ছিল এই প্রদর্শনীতে। বস্ত্ততপক্ষে তেত্রিশটি শিল্পকর্মের মধ্যে এক-তৃতীয়াংশ অর্থাৎ এগারোটিই ছিল junk sculpture —
দ্বিতীয় প্রদর্শনীর সবগুলি ভাস্কর্যই কি ব্যাংককে রয়ে গিয়েছিল? নাকি কোনো কোনোটা নিজের সঙ্গে প্যারিসে নিয়ে গিয়েছিলেন শিল্পী? এস এম আলী মেহবুব আহমেদকে বলেছিলেন ‘ব্যাংককে নভেরার কোনো কাজ এখনো আছে কি না তাও দেখে আসবেন।’ তাঁর আকস্মিক মৃত্যুর কারণে তা আর আমাদের জানা হলো না। শিল্পাকর্ন বিশ্ববিদ্যালয় এবং ব্যাংককের আলিয়ঁস ফ্রঁসেজের সঙ্গে যোগাযোগ করেও এ-সংক্রান্ত কোনো হদিস পাওয়া যায়নি।
নভেরা আহমেদের তৃতীয় ও এখনো পর্যন্ত সর্বশেষ প্রদর্শনীটি হয়েছিল প্যারিসে, ১৯৭৩ সালের জুলাই মাসে। এ-প্রদর্শনীর বারোটি ভাস্কর্যের সব কটিই ছিল ব্রোঞ্জ-নির্মিত – আঙ্গিক ও বিষয়বস্ত্তর দিক থেকে ব্যাংককের প্রদর্শনীর কাজের চাইতে অনেকটাই আলাদা। ১৯৬৬ সালের দুটি কাজ বাদে বাকি দশটি ভাস্কর্যই ছিল ১৯৭১-৭৩ কালপর্বের। প্যারিসের প্রদর্শনীতে প্রথমবারের মতো ভাস্কর্যের পাশাপাশি স্থান পেয়েছিল ১৯৭১ থেকে ১৯৭৩ সালের মধ্যে অাঁকা বারোটি ছবি। কৌতূহলোদ্দীপক তথ্য হলো প্রদর্শিত ছবিগুলির অন্যতম ছবি ‘বাংলাদেশ’ অাঁকা হয়েছিল ১৯৭১ সালে।
�continue করলেন না – শিল্পকর্ম থেকে নিজেকে বিযুক্ত করে নিলেন।’ সাম্প্রতিক অনুসন্ধানে প্রাপ্ত তথ্য অনুযায়ী, ব্যাংককের প্রদর্শনীর পর থেকে তো নয়ই, এমনকি প্যারিসের প্রদর্শনীর পরেও নভেরা শিল্পচর্চা থেকে নিজেকে বিযুক্ত করে নেননি। তবে এ লেখার উপজীব্য যেহেতু ১৯৬০-৭০ কালপর্বের ভাস্কর্য, শিল্পীর পরবর্তী পর্যায়ের ভাস্কর্য ও চিত্রকলার প্রসঙ্গ পরবর্তী কোনো প্রবন্ধে আলোচিত হবে।
বর্তমান আলোচনার উপসংহারে বলা চলে, নভেরা আহমেদ কেবল বাংলাদেশের আধুনিক ভাস্কর্যচর্চার পথিকৃৎ-শিল্পী নন, পাকিস্তানের শিল্প-ইতিহাসেও তিনি একজন অগ্রগণ্য ভাস্কর। উপরন্তু থাইল্যান্ডের আধুনিক শিল্পচর্চার ক্ষেত্রেও তাঁর ব্যাংককের প্রদর্শনী একটি মাইলফলক হিসেবে বিবেচিত হবার যোগ্য।

অস্বীকার করার উপায় নেই, নভেরার স্বাধীন ও স্বতন্ত্র শিল্পীসত্তাকে অভিবাদন জানানোর জন্য এখনো আমরা পুরোপুরি প্রস্ত্তত হতে পারিনি। আমরা অনেকেই তাঁকে দেখেছি অন্যের স্মৃতিচারণ, জনশ্রুতি আর লেখকের কল্পনার মিশেলে গড়ে ওঠা একটি উপন্যাসের চরিত্র হিসেবে। তাঁর ‘স্বেচ্ছানির্বাসনে’র কারণ নিয়ে আমরা জল্পনা-কল্পনা করেছি, কিন্তু তাঁর শিল্পসৃষ্টি নিয়ে তথ্যনিষ্ঠ গবেষণা করিনি। বাংলাদেশ জাতীয় জাদুঘরের ‘ভাস্কর নভেরা আহমেদ হলে’র কার্যক্রম অজ্ঞাত কারণে বন্ধ হয়ে গেলে আমরা নির্বিকার থেকেছি। তাঁর ভগ্নপ্রায় শিল্পকর্মগুলির জীর্ণোদ্ধারের ব্যাপারে মনোযোগী হইনি। সংরক্ষিত ভাস্কর্যগুলিকে ব্রোঞ্জে ঢালাই করে স্থায়ীভাবে সংরক্ষণের দাবিও তুলিনি। এমনকি তাঁর মৃত্যু-সংবাদের রটনায়ও আমরা বিচলিত বোধ করিনি। আমাদের রাজধানীর উন্মুক্ত পরিসরে যত্রতত্র স্থাপিত শিল্প পদবাচ্য হওয়ার অযোগ্য বস্ত্তপিন্ডকে ভাস্কর্য হিসেবে স্বীকার করে নিতে নিতে আমরা সম্ভবত বিস্মৃত হয়েছি যে, এখন থেকে অর্ধশতাব্দীকালেরও বেশি সময় আগে, নগরজীবনের পরিসরে নান্দনিক অভিজ্ঞতার উৎস হিসেবে ভাস্কর্যকে অপরিহার্য বলে মনে করেছিলেন এদেশেরই একজন শিল্পী :

We, the sculptors […] should play our part in the planning of the cities, in the building of hospitals, houses and factories — in fact in decorating every available space wherever people live and work.
[…] we must let the people grow up with work of art playing a direct positive part in their everyday life. We must return to the concept of city planning which had inspired the growth of great cities of the world, giving it a new interpretation. We must ignite among our people the spark of curiosity, about the inner visions, meanings and truths of life, which can come only by bringing art within the horizon of our city life.

Leave a Reply

*