logo

সম্পাদকীয়

শিল্প ও শিল্পী সপ্তম বর্ষ প্রথম সংখ্যা বেরোল। বাংলাদেশে চিত্রকলাবিষয়ক একটি পত্রিকার নিয়মিত প্রকাশনা বেশ কষ্টসাধ্য কাজ। লেখা পাওয়া ও মান বজায় রেখে সময়মতো প্রকাশ করা বেশ দুরূহ। তবুও আমরা চেষ্টা করছি সাধ্যমতো। এ ক্ষেত্রে দেশের ও বাংলা ভাষার শীর্ষ লেখকগণ যে সহায়তা করছেন তা আমাদের পথ চলায় পাথেয়।
এ সংখ্যায় বাংলাদেশের অগ্রণী শিল্পী এস এম সুলতানের সৃজন নিয়ে দীর্ঘ আলোচনা করেছেন শিল্প-সমালোচক মোস্তফা জামান। এই রচনায় তাঁর সৃজন-চারিত্র্যের বিভিন্ন দিক পর্যালোচনা করা হয়েছে। উঠে এসেছে তাঁর সৃজন, ব্যক্তিত্বের প্রভা ও শিল্প উৎকর্ষের নানা দিক।
শিল্প-সমালোচক হাসনাত আবদুল হাই শিল্পকলার ইতিহাস পর্যালোচনা করেছেন। ক্রমবিকাশ ও ধারাবাহিকতার পথ ধরে চিত্রকলার যে যাত্রা তা এই লেখকের বিশ্লেষণে প্রণিধানযোগ্য হয়ে উঠেছে।
শিল্পী কাইয়ুম চৌধুরীর মৃত্যুবার্ষিকী পালিত হলো কিছুদিন আগে। বাংলাদেশের চিত্রকলায় এই সৃজনশীল মানুষটি কতভাবে যে রস সিঞ্চন করেছেন তা বলে শেষ করা যায় না। তাঁর স্মরণে একটি লেখা পত্রস্থ হলো।
বাংলার চিত্রকলার ইতিহাসে গগন ঠাকুরের অবদান অবিস্মরণীয়। ভিন্ন এক রীতি ও পদ্ধতির তিনি জনক। গগন ঠাকুরের সার্ধশতবর্ষে এই অগ্রণী শিল্পীকে শ্রদ্ধাজ্ঞাপন করেছেন শিল্প-সমালোচক মৃণাল ঘোষ।
ভাস্কর সৈয়দ আবদুল্লাহ খালিদ প্রয়াত হয়েছেন কিছুদিন আগে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কলা ভবনে নির্মিত তাঁর ‘অপরাজেয় বাংলা’ ভাস্কর্যটি আমাদের মুক্তিযুদ্ধের স্মারক হিসেবে স্মরণীয়তার মূল্য পেয়েছে। ভাস্কর্যে বিশালত্ব, শিল্পগুণ ও মুক্তিযুদ্ধের স্বপ্ন- আকাক্সক্ষা রূপায়িত করে তিনি হয়ে উঠেছিলেন বিরল এক ভাস্কর। এই ভাস্কর্যটি তিনি নির্মাণ শেষ করেছিলেন নানা বিরূপতার মধ্যে। তাঁর অবদান নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করেছেন ভাস্কর আবদুল্লাহ খালিদের বন্ধু ও শিল্প-সমালোচক রবিউল হুসাইন।
ভগিনী নিবেদিতা তাঁর কালে হয়ে উঠেছিলেন স্বাধীনতা আন্দোলনের পুরোধা ব্যক্তিত্ব। সমাজ সংস্কার ও ভক্তি-আন্দোলনের পাশাপাশি শিল্প-আন্দোলনেও তাঁর ছিল এক অসামান্য ভূমিকা। এ নিয়ে আলোচনা করেছেন সুশোভন অধিকারী।
শিল্প-সমালোচক বোরহানউদ্দিন খান জাহাঙ্গীর স্থপতি লুই কানের অসামান্য কীর্তি সংসদ ভবন ও তাঁর স্থাপত্য ভাবনা নিয়ে আলোচনা করেছেন।
এ ছাড়া রইল নিয়মিত বিভাগ।

Leave a Reply

*